বিকাশ, নগদ ও রকেট একাউন্ট থেকে অর্জিত ইন্টারেস্ট ও ক্যাশব্যাক এর শরয়ী বিধান

ফতোয়া নং: ১০/১৯৩৭

বরাবর
কেন্দ্রীয় দারুল ইফতা
শাইখ যাকারিয়া ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার ঢাকা বাংলাদেশ

বিষয়ঃ হালাল হারাম প্রসঙ্গে।

মুহতারাম মুফতি সাহেব, বর্তমানে আমাদের অনেকের মোবাইলে বিকাশ একাউন্ট আছে।এর মাধ্যমে আমরা টাকা লেনদেন করে থাকি। অনেক সময় দেখা যায় বিকাশ এর পক্ষ থেকে ইন্টারেস্ট হিসাবে কিছু টাকা এসে একাউন্টে যোগ হয়। আবার অনেক সময় দেখা যায় বিকাশের পক্ষ থেকে ঘোষণা দেওয়া হয় যে, ১০০ টাকা অ্যাপ থেকে রিচার্জ করলে ৫০ টাকা ফেরত দেওয়া হবে। আবার অনেক সময় দেখা যায় বিকাশের মাধ্যমে টাকা পেমেন্ট করলে কিছু টাকা ফেরত দেওয়া হয়।
এখন আমার জানার বিষয় হলো, এই টাকার হুকুম কী? এসব টাকা আমাদের জন্য বৈধ হবে কি? মাঝে মাঝে একাউন্টে এসে যে টাকা যোগ হয় সেটা কি ইন্টারেস্ট? এর বৈধতা আছে কি?

নিবেদক
শামসুদ্দিন রিফাত
ফেনী সদর ফেনী

الجواب باسم ملهم الصدق و الصواب

ইসলামি শরিয়া মতে মুয়ামালার ক্ষেত্রে পরস্পর শর্ত/চুক্তি ব্যতিরেকে এক পক্ষ অপর পক্ষকে উক্ত মুয়ামালায় উদ্বুদ্ধ করতে অতিরিক্ত কিছু দেয়া হাদিয়া বা উপঢৌকনের অন্তর্ভুক্ত। তবে আমানত কিংবা ঋণ হিসেবে জমাকৃত অর্থের উপর অতিরিক্ত গ্রহণ সুদের অন্তর্ভুক্ত।

সুতরাং প্রশ্নোক্ত সুরতে বিকাশ কোম্পানি কর্তৃক যত প্রকার ক্যাশব্যাক দেওয়া হয় তা যেহেতু তাদের অ্যাপ বা পেমেন্ট গেটওয়ে ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে কোনরূপ চুক্তি ছাড়া তাৎক্ষণিক লেনদেনে স্বেচ্ছায় প্রদান করে থাকে, তাই তা হাদিয়া বা উপঢৌকনের অন্তর্ভুক্ত হবে এবং গ্রাহকদের জন্য তা গ্রহণ করা বৈধ হবে।  অপরদিকে প্রশ্নের প্রথমাংশে উল্লেখিত বিকাশ কোম্পানি কর্তৃক তার গ্রাহকদেরকে একাউন্টে জমানো অর্থের ওপর যে ইন্টারেস্ট দেওয়া হয়, তা সুদের অন্তর্ভুক্ত হবে, তাই গ্রাহকদের জন্য তা গ্রহণ করা হারাম হবে।

উল্লেখ্য, বিকাশ যেহেতু ব্র্যাক ব্যাংকের একটি প্রতিষ্ঠান যা সম্পুর্ণ সুদভিত্তিক, তাই যথা সম্ভব তা এড়িয়ে চলাই কাম্য। বাধ্য হয়ে ব্যবহার করলে প্রাপ্ত ইন্টারেস্ট সাওয়াবের নিয়ত ছাড়া কোনো গরিবকে সদকা করে দিবে।

الادلۃ الشرعیہ

فتح القدیر: 9/19 (رشيديه)

ثم إن الهبة في اللغة أصلها من الوهب…. ومعناها : إيصال الشيء إلى الغير بما ينفعه سواء كان مالا أو غير مال … وأما في الشريعة فهي تمليك المال بلا عوض كذا في عامة الشروح بل المتون .

فقہ البیوع: 2/810 (معارف القران)

ماجری بہ عمل بعض التجار انھم یعطون جوائز لعملائھم  الذین اشتروا منھم کمیۃ مخصوصۃ … ولیس ھذا من قبیل الزیادۃ فی المبیع…. فھی ھبۃ مبتداۃ موعودۃ من البائع لتشجیع الناس علی ان یشتروا ھذہ البضائع منہ.

بحوث فی قضایا فقھیۃ معاصرۃ: 1/342 (وزارۃ الاوقاف)

اما الودیعۃ الثابتۃ وودا‏ئع التوفیق فان البنک یدفع فائدۃ مضمونۃ لاصحابھا وبما ان ھذہ الودائع  قروض بلا خلاف. فما تدفعہ البنوک زیادۃ علی راس المال، فانہ ربا صراح لا سبیل الی جوازہ. وقد اجمع مجمع الفقہ الاسلامی فی ذلک قرارا فی دورتہ الثانیۃ. فمن یتقدم الی البنک لایداع اموالہ فی ھذین النوعین فانہ یعقد معہ عقد قرض ربوی، وذلک حرام. فلا یجوز  لمسلم ان یودع مالہ فی احد من ھذین النوعین۔

والله اعلم بالصواب

كتبه
فیض اللہ
المتمرن بدار الفتاء والارشاد المركزية داكا
بمركز الشيخ زكريا للبحوث الاسلامية
14/3/1442ھ
শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *