“আল্লাহর ক্বছম আর কোনো দিন খেলবো না, যদি খেলি তাহলে বিয়ে করলে বউ তালাক” বলার পর খেললে সত্যিই কি বউ তালাক হয়ে যাবে?

ফতোয়া নং:১০/১৯৫৬

বরাবর
কেন্দ্রীয় দারুল ইফতা
শাইখ যাকারিয়া ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার ঢাকা বাংলাদেশ

বিষয়ঃ বিবাহ প্রসঙ্গে
মুহতারাম মুফতি সাহেব, আমরা নাহবেমির জামাতে পড়ার সময় আমাদের নাহবেমির জামাত ও হেদায়াতুন্নাহু জামাত পরস্পর এক শুক্রবারে ক্রিকেট খেলি আমাদের মাদরাসার প্রধান মুফতি সাহেব বিষয়টি সম্পর্কে অবগত হওয়ার পর সমস্ত ছাত্রকে মাদরাসায় ডেকে পাঠিয়ে প্রচুরভাবে বকাঝকা করেন। তারপর সবার মাথায় কোরআন শরিফ রেখে বলতে বলেন যে, আমি যা বলবো তোরাও তা বলবি তখন তিনি বলেন আল্লাহর ক্বছম আর কোনো দিন খেলবো না যদি খেলি তাহলে বিয়ে করলে বউ তালাক। তার সাথে সাথে আমরাও একই কথা বলেছি তবে আমরা কয়েকজন সাথি উক্ত বাক্যের শেষে সঙ্গে সঙ্গে ان شاء الله বলি। তিনি মন্তব্য করলেন ان شاء الله দ্বারা কোনো কাজ হবে না। আমি যা বলেছি তাই হবে। কিন্তু এই ঘটনার পরেও আমরা খেলেছি এবং খেলি। ইতিমধ্যে আমাদের এক সাথি বিয়েও করেছে এই বিষয়ের পরে আমরা হুজুরের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন শুধু কছমের কাফফারা দিলেই চলবে। বিয়েতে কনো প্রভাব পরবে না।

এ প্রসঙ্গে মুফতি সাহেব থেকে আমাদের জানার বিষয় হলোঃ-
১। উপরে উল্লেখিত ঘটনার আলোকে আমরা যারা ان شاء الله বলেছি বা বলিনি, সকলের কছমের ও বিবাহের ব্যাপারে শরীয়তের হুকুম কি?
২। যদি তালাক পতিত হয়েই যায় তবে তা থেকে বাচার কোনো উপায় আছে কি না?
৩। দ্বিতীয়বার পুনরায় বিবাহ করতে হলে আমাদের মোহরের হুকুম কি? দলিল ভিত্তিক সমাধান দিয়ে উপকৃত করবেন।

নিবেদক
আব্দুর রহমান
জামাতে মিশকাত

الجواب باسم ملهم الصدق و الصواب

শরয়ি দৃষ্টিতে ইচ্ছায় বা অনিচ্ছায় কোনো কাজ করা না করার শপথ করত সে সঙ্গে বিয়ে পরবর্তী তালাককেও শর্তযুক্ত করে পরবর্তীতে সে অঙ্গীকার ভঙ্গ করলে সে কসম ভঙ্গকারী হিসেবে গণ্য হবে এবং সাথে সাথে বিয়ে করলে স্ত্রীর উপরও তালাক কার্যকর হয়ে যাবে। আর كلما (কুল্লামা) জাতীয় শব্দের প্রয়োগ ছাড়া সাধারণভাবে শপথ করলে প্রথমবার শপথ ভঙ্গ করার মাধ্যমে সে উক্ত শপথ থেকে মুক্ত হয়ে যায়। ফলে পরবর্তীতে সে কাজ করতে শরয়ী কোনো বাধা থাকে না। তবে শপথ বাক্য পাঠ শেষে যদি তৎক্ষণাৎ ইনশাআল্লাহ বলে তাহলে শপথ সংঘটিত হয় না।

সুতরাং প্রশ্নের বর্ণনা অনুপাতে শপথবাক্য পাঠ শেষে যারা ইনশাআল্লাহ বলেছেন তাদের শপথ সংঘটিত হয়নি। তাই পরবর্তীতে খেলাধুলা করায় তারা কসম ভঙ্গকারী গণ্য হবে না এবং বিয়ে করলে স্ত্রীও তালাক হবে না। আর যারা ইনশাআল্লাহ বলেনি তারা খেলাধুলা করার কারণে কসম ভঙ্গকারি গণ্য হবে। ফলে তাদের উপর কসমের কাফফারা আদায় করা আবশ্যক এবং তারা বিবাহ করার সাথে সাথেই স্ত্রীর উপর এক তালাকে বায়েন কার্যকর হয়ে যাবে। অবশ্য উক্ত কসম একবার কার্যকর হয়ে যাওয়ায় পরবর্তীতে এর কার্যকারিতা আর বাকি থাকবে না। ফলে তাদের ঐ বায়েন তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীর সাথে পুনরায় বিয়ে নবায়ন করে নেওয়ার অবকাশ আছে। এতে পরবর্তীতে উক্ত কসমের কারণে আর কোন তালাক পতিত হবে না।
এক্ষেত্রে প্রথম বিয়ের মোহর নির্ধারিত হলে অর্ধেক মোহর আর নির্ধারণ না থাকলে মুতআ (পূর্ণাঙ্গ পরিধেয় বস্ত্র সেট) আদায় আবশ্যক। পরবর্তীতে বিবাহ নবায়ন করা হলে তখন যেই মোহর নির্ধারণ করা হবে তা আদায় করা আবশ্যক হবে।

উল্লেখ্য এক্ষেত্রে উক্ত স্ত্রীর ব্যাপারে স্বামী অবশিষ্ট দুই তালাক এর মালিক থাকবে। হ্যাঁ, কেউ যদি প্রথম থেকেই তালাক থেকে বাঁচতে চায় তাহলেنكاح فضولى (নিকাহে ফুজুলী) এর পন্থা অবলম্বন করতে পারে।

الأدلۃ الشرعیة

سنن الترمذي رقم الحدیث: 530

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: مَنْ حَلَفَ عَلَى يَمِينٍ، فَرَأَى غَيْرَهَا خَيْرًا مِنْهَا، فَلْيُكَفِّرْ عَنْ يَمِينِهِ وَلْيَفْعَلْ.

الأصل: 5 / 193 (إدارة القرآن)

قال محمد أخبرنا بذلك أبو حنيفة عن القاسم عن أبي عن عبد الله بن مسعود وذكر عبد الله عن نافع عن ابن عمر وأبو حنيفة عن حماد عن إبراهيم وغيرهم أنهم قالوا من حلف على يمين وقال إن شاء الله فقد استثنى ولا حنث عليه ولا كفارة

العناية شرح الهداية: 124 \4 (دار الفكر)

مَنْ قَالَ كُلُّ امْرَأَةٍ أَتَزَوَّجُهَا فَهِيَ طَالِقٌ فَتَزَوَّجَ امْرَأَةً طَلُقَتْ، وَلَوْ تَزَوَّجَ أُخْرَى طَلُقَتْ كَذَلِكَ، فَكَانَ الْوَاجِبُ أَنْ يَقُولَ فِي الِاسْتِثْنَاءِ إلَّا فِي كُلٍّ وَكُلَّمَا. وَالثَّانِي أَنَّهُ قَالَ وَمِنْ ضَرُورَةِ التَّعْمِيمِ التَّكْرَارُ، وَالتَّعْمِيمُ فِي كَلِمَةِ كُلٍّ مَوْجُودٌ كَمَا ذَكَرْنَا آنِفًا وَلَا تَكْرَارَ فِيهِ، حَتَّى لَوْ تَزَوَّجَ الَّتِي طَلُقَتْ ثَانِيًا لَمْ يَقَعْ الْجَزَاءُ.

والله أعلم بالصواب

كتبه
أبو الدرداء تاكور غاوي
المتمرن بدار الإفتاء والإرشاد المركزية داكا
بمركز الشيخ زكريا للبحوث الإسلامية
14/3/1442ھ
শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *