অবাধ্য সন্তানেরা বাবার নাম-ঠিকানা ব্যবহার করার অধিকার রাখে কি?

ফতোয়া নং: ১০/১৯৬৮

বরাবর 
কেন্দ্রীয় দারুল ইফতা
শাইখ যাকারিয়া ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার,ঢাকা।

বিষয়ঃ বাবার সাথে সন্তানের আচরণ প্রসঙ্গে।

১- যে সমস্ত সন্তানেরা বাবার গায়ে হাত তোলে, বাবার সংসারে থাকা মাকে চোর দাবি করে, তালাক দেওয়ার জন্য বাবাকে জোর সুপারিশ করে এমন সন্তানেরা আল্লাহর পক্ষ থেকে কি প্রতিদান পাইবে?

২- যে সন্তানেরা বাবার নিজ বাড়িকে নিজ মায়ের বাড়ি দাবি করে এবং মামা-খালুদের প্ররোচনায় বাবাকে তার নিজ বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিতে এলাকার মানুষকে ব্যবহার করে তাদের জন্য আল্লাহর পক্ষ থেকে কি প্রতিদান আছে?

৩- যে সকল সন্তানেরা নানীদের ও খালাদের পরামর্শে বাবার সংসারের মালামাল এমনকি জমির দলিল পর্যন্ত গোপনে দিয়ে দেয়। সেক্ষেত্রে এসমস্ত সন্তানেরা বাবার নাম ও ঠিকানা ব্যবহার করার অধিকার রাখে কি?

নিবেদক
হাফেজ মোঃ মেরাজুল হক
মোবাইল ০১৯৫ ২৪ ২৪ ১২
৬২৭ ফায়ার সার্ভিস রোড বেদ গ্রাম
গোপালগঞ্জ সদর

الجواب باسم ملهم الصدق والصواب

ইসলামী শরীয়া অনুযায়ী পিতা-মাতার প্রতি সদাচরণ, সদ্বব্যবহার করা সন্তানের আবশ্যকীয় দায়িত্ব ও কর্তব্য। কোন অবস্থাতে পিতা-মাতার সাথে অসন্তুষ্টি মূলক আচরণ এবং তাদের প্রতি কোন ধরনের শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন অন্যতম কবিরা গুনাহ। যদিও কোন পিতা ন্যায় নিষ্ঠা ও আদর্শচ্যুত হোক না কেন তার সাথে নম্রতা ভদ্রতা বজায় রাখা আবশ্যক।

কুরআনুল কারীমে পিতা-মাতার সাথে “উফ” শব্দ পর্যন্ত বলতে নিষেধ করা হয়েছে। সে ক্ষেত্রে প্রশ্নোল্লিখিত আচরণগুলো যেমন বাবার গায়ে হাত তোলা, মাকে চোর দাবি করা, সৎ-মাকে তালাক দেওয়ার জন্য বাবাকে বাধ্য করা ইত্যাদি যে মারাত্মক গুনাহ তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তাই এধরনের সকল কর্মকান্ড থেকে সন্তানের দ্রুত তাওবা করা এবং বাবার কাছে অতি দ্রুত ক্ষমা চেয়ে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়ে নেওয়া আবশ্যক।

তবে এর পাশাপাশি একজন পিতার জন্য লক্ষণীয় বিষয় হল, তিনি সন্তানদের প্রতি ইনসাফ করবেন। দ্বিতীয় স্ত্রীর কারণে হোক বা অন্য যে কোন উদ্দেশ্যে হোক সন্তানদের বৈধ কোন হক থেকে তাদের বঞ্চিত করবেন না। এসব বিষয়ে কোনো ত্রুটি হলে সেক্ষেত্রে তাকেও আল্লাহর সামনে আসামীর কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।

الادلة الشرعية

صحيح البخاري:(رقم الحديث:٢٥٥٤)

عن عبد الله رضي الله عنه: أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال: «كلكم راع فمسئول عن رعيته

صحيح البخاري:(رقم الحديث:٥٩٧١)

عن أبي هريرة رضي الله عنه قال: جاء رجل إلى رسول الله صلى الله عليه وسلم فقال: يا رسول الله، من أحق الناس بحسن صحابتي؟ قال: «أمك» قال: ثم من؟ قال: «ثم أمك» قال: ثم من؟ قال: «ثم أمك» قال: ثم من؟ قال: «ثم أبوك

رد المحتار:(٧٨/٤،سعيد)

إذا رأى منكرا من والديه يأمرهما مرة، فإن قبلا فبها، وإن كرها سكت عنهما واشتغل بالدعاء والاستغفار لهما فإن الله تعالى يكفيه ما أهمه من أمرهما

الموسوعة الفقهية الكويتية :(8/61)

وفي حديث عبد الله بن مسعود – رضي الله عنه – قال: سألت رسول الله صلى الله عليه وسلم: أي العمل أحب إلى الله؟ قال: الصلاة على وقتها، قلت: ثم أي؟ قال: بر الوالدين، قلت: ثم أي؟ قال: الجهاد في سبيل الله. (3) فهذه النصوص تدل على وجوب بر الوالدين وتعظيم حقهما.

والله اعلم بالصواب

كتبه
شھادت ثاقب
المتمرن بدار الإفتاء والإرشاد المركزية
بمركز الشيخ زكريا للبحوث الإسلامیة داكا
25/٥/١٤٤٢ ھ
শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!